Header Ads

ফসফরিক এসিড (Phosphoric Acid) [Acid Phos.- এসিড ফস]

ফসফরিক এসিড (Phosphoric Acid) [Acid Phos. - এসিড ফস ]       [ ফসফরাস ও অক্সিজেনের সংযোগে প্রস্তুত এসিড ]

যে-সকল ব্যক্তি পূর্বে বেশ সরল ধাতুর ছিল কিন্তু এখন জৈব তরল পদার্থের অপচয়, অতিরিক্ত ইন্দ্রিয়সেবা ( সিঙ্কোনা), প্রবল তরুণ রোগ ভোগ, মনোকষ্ট, অথবা শোক, দুশ্চিন্তা, হতাশ প্রেম প্রভৃতি মানসিক উদ্বেগে পুনঃ পুনঃ পীড়িত হইয়া দূর্বলীভূত হইয়া পড়িয়াছে, তাহাদের পক্ষেই সর্বাপেক্ষা উপযোগী ঔষধ। 

দুশ্চিন্তা, মনোকষ্ট, শোক, দুঃখ, গৃহকাতরতা ( ইগ্নে) হইতে পীড়া; রোগী নিদ্রালু, ক্রন্দনপ্রবৃত্তিবিশিষ্ট; ভোরের দিকে নিশার্ঘম হয়। 

বিবর্ণ রুগ্ন মুখশ্রী, চক্ষু কোটরাগত এবং নীলমন্ডল পরিবেষ্টিত। নরম ও বশ্য স্বভাব ( পালস)। 


রোগী অমনোযোগী, উদাসীন, জীবনের কাজকর্মের প্রতি উপেক্ষাযুক্ত এবং দুঃখের ভারে বিমূঢ়; যে-সকল বস্তু পূর্বে তাহার নিকট চিত্তাকর্ষক ছিল, এখন তাহার প্রতিও উদাসীন, বিশেষতঃ যদি তাহার ধাতুদৌর্বল্য ও দৈহিক শীর্ণতা দেখা দিয়া থাকে। 

প্রলাপ-বিড় বিড় করিয়া বকে, কি বলে তাহা বুঝা যায় না; আচ্ছন্নতা অথবা মূঢ়ের ন্যায় নিদ্রায় অভিভূত থাকে; চারি পার্শ্বে যাহা কিছু ঘটিতেছে তাহা বুঝিতে পারে না; জাগাইয়া তুলিলে পূর্ণ সজ্ঞান অবস্থা, ধীরে ধীরে ও নির্ভলভাবে প্রশ্নের উত্তর দেয় এবং তারপর আবার আচ্ছন্ন নিদ্রায় অভিভূত হইয়া পড়ে। 

যে-সকল শিশু ও যুবক-যুবতী অতিদ্রুত বাড়িয়া উঠে ( ক্যাল্ক কার্ব, ক্যাল্ক ফস) তাহাদের পক্ষে উপযোগী; পৃষ্ঠে ও অঙ্গপ্রত্যঙ্গে আঘাত প্রাপ্ত হওয়ার ন্যায় বেদনা বোধ করে। 

শিরঃপীড়া, মস্তকশীর্ষে মাথা ভাঙ্গিয়া পড়ার ন্যায় ভারি বোঝা চাপান থাকার অনুভূতি; দীর্ঘকালস্থায়ী শোক বা স্নায়বিক অবসন্নতা হইতে শিরঃপীড়া; শিরঃপীড়া মস্তকের পশ্চাৎদিকে এবং গ্রীবাদেশে; সাধারণতঃ উহা পশ্চাৎ হইতে সম্মুখ দিকে বিস্তৃত হয়; সামান্য নড়াচড়ায় শব্দে বিশেষতঃ সঙ্গীতে বৃদ্ধি; শুইয়া থাকিলে উপশম (ব্রায়ো, জেলস, সাইলি)। 

জোর করিয়া চক্ষু ব্যবহার অথবা চক্ষুর অতিশ্রম হইতে স্কুলের বালিকাদের শিরঃপীড়া ( ক্যাল্ক ফস, নেট্রাম মিউ); যে-সকল ছাত্র দ্রুত বাড়িয়া উঠিতেছে তাহাদের শিরঃপীড়া। 

রোগী কাঁপিতে থাকে; পদদ্বয় দূর্বল, সহজেই হোঁচট লাগে অথবা ভূল পদক্ষেপ করে, দূর্বল এবং দৈনন্দিন কাজকর্মে উদাসীন। 

গন্ডমালা, সাইকোসিস, সিফিলিস অথবা পারদদোষহেতু অস্থিদ্বয়ের  মধ্যবর্তী স্থানের প্রদাহ; অস্থিবেষ্টের প্রদাহ; বেদনা জ্বালাকর, ছিন্নকর, মনে হয় যেন স্থানটি ছুরি দিয়া চাঁচিয়া ফেলিতেছে (রাস); অস্থিক্ষত, বালাস্থিবিকৃতি কিন্তু অস্থিপচন নহে; বেদনা বর্ধনশীল। 

হস্ত-পদাদির স্নায়ুসমূহ রন্দ্রকরার ন্যায়, টানিয়া ধরার ন্যায়; খনন করার ন্যায় যাতনা; অস্ত্রোপচারসাহায্যে অঙ্গচ্ছেদের পর, ছিন্নস্থানের অবশিষ্ট অংশের অস্থিপচন ( সেপা)। 

উদরাময়, বেদনাহীন, উহাতে রোগী দূর্বল হয় না; সাদা অথবা হলদে জলবৎ মল, টক দ্রব্য আহার জনিত উদরাময়; অসাড়ে উদরাময়, তৎসহ বায়ু নিঃসরণ ( এলো, নেট্রাম মিউ); কলেরা সদৃশ উদরাময়; জ্বর হইতে উদরাময়। 

প্রস্রাব-দেখিতে দুধের মত, উহার মধ্যে জেলির মত রক্তাক্ত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র টুকরা মিশ্রিত থাকে; সহজে পচিয়া উঠে। রাত্রিকালে প্রচুর পরিস্কার জলবৎ প্রস্রাবত্যাগ করে, উহা সঙ্গে সঙ্গেই সাদা মেঘের ন্যায় বর্ণ। ধারণ করে ( মুত্রে অতিরিক্ত ফসফেট এবং ক্ষয়িত স্নায়ুর অংশ)। 

হস্তমৈথুন, যখন  রোগী ঐ কুক্রিয়ার অপরাধের জন্য অত্যন্ত মনোকষ্ট ভোগ করে ( তুলনীয়-ডায়ষ্কো, ষ্ট্যাফিস)। 

রেতঃস্খলন, পুনঃপুনঃ প্রচুর এবং দূর্বলকর, সঙ্গমের পর রেতঃপাত, রেতঃপাতের পরও অত্যন্ত সঙ্গমেচ্ছা, একই রাত্রে কয়েকবার রেতপাত, লজ্জিত, দুঃখিত, ্আরোগ্য সম্বন্ধে হতাশ ( হস্তমৈথুনের অদম্য প্রবৃত্তি-আষ্টি)। 

বক্ষ, কথা বলিলে বা কাশিলে দূর্বলতা বোধ করে (ষ্ট্যানাম), যক্ষা রোগে, জৈব তরল পদার্থের অপচয়জনিত স্নায়বিকতার জন্য অতি দ্রুত বাড়িয়া উঠার জন্য। অবসন্নকর মানসিক আবেগের জন্য এরূপ অবস্থা। 

মস্তিস্ক আক্রান্তিযুক্ত টাইফয়েড অথবা টাইফাস রোগ, রোগী সম্পূর্ণ উদাসীন ও আচ্ছন্ন নিদ্রায় অভিভূত, কোন দিকেই লক্ষ্য থাকে না, “কাঠের গুড়ির ন্যায়” পড়িয়া থাকে, পারিপার্শ্বিক সম্বন্ধে কোনিই চেতনা থাকে না; অন্ত্র হইতে রক্তস্রাব হয়। রক্ত কালবর্ণ। 

সম্বন্ধ- টাইফয়েড রোগে ফস, পালস, পিক্রিক এসিড, সাইলি, মিউর এসিড সহ তুলনীয়, আচ্ছন্ন নিদ্রায় এবং প্রলাপে নাই স্পিরিডাল সহ তুলনীয়। 

ক্ষয়কর ঘর্ম, উদরাময় ও দূর্বলতা লক্ষণে ফস এসিড সিঙ্কোনার পূর্বে ও পরে ভাল খাটে, আহারের পর মুর্ছা লক্ষণে নাক্সের পর ভাল কাজ করে । 

উপচয়-মানসিক পীড়ায়, জৈব তরল পদার্থের বিশেষতঃ শুক্রক্ষয়ে হস্তমৈথুন, অতিরিক্ত ইন্দ্রিয়সেবায়, কথা বলায় বক্ষের দূর্বলতা বৃদ্ধি পায় ( ষ্ট্যানাম)। 

[শক্তি-১X, ৩X, ৬, ৩০ ]

1 টি মন্তব্য:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.